মেহেরপুর মুক্ত দিবস আজ

0
431

৬ ডিসেম্বর মেহেরপুর মুক্ত দিবস।  ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তিবাহিনীর প্রতিরোধের মুখে পাক হানাদার বাহিনীর সদস্যরা পালিয়ে গেলে মেহেরপুরে উড়ে বিজয় পতাকা।
Mujibnogor the mail bd১৯৭১ সালে  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবরের ডাকে স্বাধীনতার উদয় ভূমি মুজিবনগর তথা মেহেরপুরের মানুষ মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন।  একের পর এক আক্রমণের মুখে পাক সেনারা ১৯৭১ সালের ৫ ডিসেম্বর রাত থেকেই মেহেরপুর ছেড়ে অন্যত্র পালিয়ে যায়। ৬ ডিসেম্বর সকালে পাক বাহিনীর আর কোনো সদস্যকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।  তাইতো পরাধীনতার শিকল থেকে বিজয়ের স্বাদ গ্রহণ করেন মেহেরপুরবাসী। এদিন সকাল থেকেই রাস্তায় নেমে আসেন বিভিন্ন বয়সী মানুষ। বিজয় পতাকা উড়িয়ে জয় উল্লাস করেন মুক্তিকামী হাজার হাজার জনতা। সেদিনের বিষয়ে স্মৃতি চারণে এমনই জানান মেহেরপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধারা।
তারা আরো জানান, মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরোধে দিশেহারা পাক সেনারা মেহেরপুর ছাড়ার সময় দিনদত্ত ব্রিজ, খলিশাকুণ্ডি ও তেরাইল ব্রিজ ধ্বংস করে দেয়। ধ্বংস করে বৈদ্যুতিক বিভিন্ন স্থাপনা।
১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মুজিবনগরের বৈদ্যনাথতলা আম্রকাননে অস্থায়ী সরকারের শপথ গ্রহণের পর ।মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবার ও সাধারণ মানুষের ওপর শুরু হয় বর্বর নির্যাতন। চলে গণহত্যা। এসময় কতো মানুষকে হত্যা করা হয়েছে তার সঠিক পরিসংখ্যান কারো জানা নেই।
তবে পাক সেনারা মেহেরপুর ছেড়ে গেলে সরকারি কলেজ ও ওয়াপদা মোড় এলাকা থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষের কঙ্কাল সংগ্রহ করে সমাহিত করা হয় কলেজ মোড়ে। নাম না জানা অসংখ্য শহীদের স্মৃতি রক্ষায় পরবর্তীতে সেখানে নির্মাণ করা হয় একটি স্মৃতি সৌধ। স্মৃতি সৌধ ঘিরে প্রতি বছরের মতো এবারো মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন দিবসটি পালনে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।
শহীদদের কবর জিয়ারত, স্মৃতি সৌধে পুষ্পার্ঘ অর্পণ, আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করা হবে জানান জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বশির আহম্মেদ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here