শনিবার, জুলাই ১৩, ২০২৪

নান্দনিক নির্মাণশৈলী আর স্থাপত্যে অনন্য যশোরের জঙ্গলবাধাঁল মসজিদ

যা যা মিস করেছেন

আবু বকর ছিদ্দিক রনি, শার্শা প্রতিনিধিঃ
জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের আদলে নির্মাণশৈলী ও নান্দনিকতায় অনন্য যশোর সদর উপজেলার বসুন্দিয়ার জঙ্গলবাধাঁল স্কুল কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ। মসজিদটির সৌন্দর্য-শোভা এখন দূরদূরান্তের মুসল্লিদেরও টানছে।

স্থানীয় বিত্তবান ও গ্রামবাসীর সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ২০১৯ সালে নির্মাণকাজ শুরু হয়ে ২০২০ সালে নান্দনিক এ মসজিদটির নির্মাণ শেষ হয়। জঙ্গলবাধাল স্কুলের ৭২ শতক জায়গায় এই মসজিদটির নির্মাণে ব্যয় হয়েছে প্রায় দুই কোটি টাকা। গ্রামের এ মসজিদটি শুধু নামাজ আদায়ের স্থান নয় বরং বর্তমানে দর্শনীয় স্থানে পরিণত হয়েছে।

জঙ্গলবাধাঁল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ও জঙ্গলবাধাঁল স্কুল কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের তত্ত্বাবধায়ক শহিদুল মিন্টু জানান, তার বাবা খলিলুর রহমান ১৯৭১ সালে ইউপি চেয়ারম্যান ও এলাকার একমাত্র ডাক্তার ছিলেন। মসজিদটি তার বাবার আমলের। ২০১৯ সালে এলাকাবাসী সম্মিলিতভাবে মসজিদটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়। বিশেষ করে তার মৃত ভাই জহুরুল ইসলাম ও আমেরিকান প্রবাসী আশরাফুল হক নিপুর অর্থায়নে মসজিদের প্রথম দিকের নির্মাণকাজ শুরু হয়। এরপর একে একে সহযোগিতার হাত বাড়ান গ্রামের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ। সে সময় জাতীয় মসজিদের আদলে তৈরির পরিকল্পনা করা হয়। সে অনুযায়ী মসজিদটি নির্মাণ করতে প্রায় এক বছর সময় লাগে। আর এতে খরচ হয়েছে প্রায় দুই কোটি টাকা।

তিনি আরও বলেন, দুইজন হাফেজ, দুইজন মুয়াজ্জিন, বয়স্কদের কোরআন শিক্ষা, আর ৫২ ছাত্র-ছাত্রীর হেফজখানা রয়েছে। পুরো রমজান মাসে মুসল্লিদের জন্য রয়েছে ইফতারের ব্যবস্থা। এটা গ্রামবাসীর উদ্যোগেই করা হয়।

স্থানীয় বাসিন্দা আবুল কাশেম মোল্যা বলেন, আমরা ঢাকায় গেলে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম দেখতে পাই। আমাদের সবার মনে একটা খোরাক থাকে জাতীয় মসজিদে এক ওয়াক্ত নামাজ আদায় করার। আমাদের জঙ্গলবাধাঁল গ্রামের মসজিদটি গ্রামবাসীর উদ্যোগে জাতীয় মসজিদের আদলে তৈরি করা হয়েছে। আমাদের কাছেও এখন অনেক ভালো লাগে এই মসজিদে নামাজ আদায় করতে।

মশিয়ার রহমান নামের আরেক বাসিন্দা বলেন, মসজিদটি দেখতে প্রতিদিন দূরদূরান্ত থেকে লোকজন আসে। অনেকে জুমার নামাজ আদায় করতেও এ মসজিদে আসে। গ্রামের মধ্যে এটা যেন এক টুকরো জাতীয় মসজিদ।

ব্যবসায়ী ও সমাজকর্মী কামাল হোসেন বলেন, এই মসজিদটি নির্মাণে গ্রামের সকলের অবদান রয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি অবদান শহিদুল ইসলামের পরিবারের। তাদের বড় ধরনের আর্থিক সহযোগিতা আর গ্রামবাসীর সম্মিলিত প্রচেষ্টা ও সহযোগিতায় মসজিদটিকে আজ আমরা যশোরের বুকে ফুটিয়ে তুলতে পেরেছি।

৬০ বছরের মসজিদ বায়তুল মোকাররম, সংরক্ষিত আছে ‘কাবা’র গিলাফ
মসজিদের মুয়াজ্জিন শহর আলী বলেন, গত ১০ বছর ধরে এ মসজিদে আমি মুয়াজ্জিন হিসেবে আছি। নতুন মসজিদ হওয়ার পর এর দায়িত্বেও আমি আছি। আমার কাছে আল্লাহর এই ঘরটি বেশ ভালো লাগে। খুব মনোরম এবং নান্দনিকভাবে মসজিদটি তৈরি করা হয়েছে।

অনুমতি ব্যতিত এই সাইটের কোনো কিছু কপি করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।

প্রিয় পাঠক অনলাইন নিউজ পোর্টাল দ্যামেইলবিডি.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন themailbdjobs@gmail.com ঠিকানায়।

More articles

সর্বশেষ