মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০২৪

প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্যের মনোনয়ন সংগ্রহ ও জমা দানে বিএনপি নেতা ও নাশকতাকারীদের ভিড়

যা যা মিস করেছেন

স্বীকৃতি বিশ্বাস, যশোরঃ

নাশকতা মামলা আসামি ও নৌকা বিরোধীদের নিয়ে
আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৮৯ যশোর -৫ মনিরামপুর সংসদীয় আসনে বর্তমান সাংসদ ও প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য মনোনয়ন সংগ্রহ ও জমা দিলেন।

নৌকার মনোনয়ন চুড়ান্ত করতে হরিহরনগর ইউপি নির্বাচনে দলীয় আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে পরাজিত করতে মুখ্যভূমিকা রাখা প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য
উপজেলার হরিহরনগর ইউনিয়ন বিএনপি যুগ্ম আহ্বায়ক ও তাঁর আর্শিবাদপুষ্ট নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক বিশ্বাসসহ নৌকা বিরোধী স্বতন্ত্র চেয়ারম্যানদের নিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়কে কলুষিত করছেন।

আঃ রাজ্জাক বিশ্বাস যার নামে রয়েছে নাশকতা মামলা যার মামলা নং ১৮/১৫৪। এছাড়াও রয়েছে নৌকার বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নৌকার পরাজয়ে যে পরিবার সর্বদা বিরোধীতাকারী চালুয়াহাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ হামিদ সরদার। যিনি চালুয়াহাটি ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের কর্মী সমার্থকদের সাথে সর্বোচ্চ অসাধ আচারন করে থাকেন। চেয়ারম্যান আঃ হামিদ সরদারের পিতা সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম আঃ হাকিম সরদার ১৯৯০ সাল থেকে মনিরামপুর উপজেলার আপামর মানুষের ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতা কর্মী সমার্থকদের হৃদয় জয় করা সাবেক সংসদ সদস্য বঙ্গবন্ধুর স্নেহধন্য মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা খান টিপু সুলতানের বিরুদ্ধে সকল জাতীয় নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে নৌকা পরাজয়ের মিশনে জোর প্রচার প্রচারনা করতেন।যে নেতা ৫ বার আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়ে তিন বার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সেই নেতার বিরুদ্ধে সর্বদায় জাতীয় নির্বাচনে বিরোধীতা করেছিলেন আঃ হামিদ সরদারের পিতা সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম আঃ হাকিম সরদার। এছাড়াও মন্ত্রীর এবারের মনোনয়নের তদবিরে রয়েছেন মণিরামপুর উপজেলার নৌকা বিরোধী স্বতন্ত্র চেয়ারম্যানরা।

উল্লেখ্য স্বপন ভট্টাচার্য যশোর-৫ মণিরামপুর সংসদীয় আসন থেকে ২০১৪ সালে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে কলস প্রতীক নিয়ে বিএনপি ও জামাতের আর্শিবাদে
আওয়ামীলীগের সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম খান টিপু সুলতানকে পরাজিত করে প্রথম স্বতন্ত্র সংসদ নির্বাচিত হন ও ২০১৮ সালে দ্বিতীয় বার দলীয় মনোনয়নে নির্বাচিত হয়ে প্রতিমন্ত্রী হন।
তৃতীয় বার আবারও মনোনয়ন সংগ্রহ ও দলের মনোনয়ন জমাসহ দলের মনোনয়ন পেতে বিএনপিসহ স্বাধীনতা বিরোধী চক্রকে সাথে নিয়ে জোর তদবির করে চলেছেন মনোনয়ন প্রত্যাশী স্বপন ভট্টাচার্য।
এছাড়া সোস্যাল মিডিয়া ফেসবুকে স্বপন ভট্টাচার্য পক্ষের জনশূন্য স্থানীয় কর্মী সমার্থকদের আইডিতে দেখা যায় ২০১৪ ও ২০১৮ সালে যারা জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনকে বানচাল করতে ষড়যন্ত্র করেছে তাদেরকে নিয়ে তিনি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন সংগ্রহ, জমা ও মনোনয়ন পেতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়সহ বিভিন্ন কেন্দ্রীয় নেতাদের নিকট তদবির করে চলেছেন নিজ নির্বাচনী এলাকায় দলীয় নেতাকর্মী ও হিন্দু সম্প্রদায়কে নির্যাতন করে জনপ্রিয়তায় শূন্যের কোটায় থাকা স্বপন ভট্টাচার্য।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মণিরামপুর উপজেলা শাখার আজ দলের প্রকৃত কর্মী সমার্থকরা বর্তমান সরকারের পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য এমপি নিকট যেন বিষফোঁড়া। তিনি ২০১৪ সাল থেকে মনিরামপুর উপজেলায় একক ভাবে জামাত বিএনপিকে প্রতিষ্ঠিত করার পাশাপাশি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগসহ সরকারি বিভিন্ন সহায়তা মাধ্যমে অর্থ বানিজ্য করে চলেছেন।যেখানে আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতা কর্মীরা হয়েছে বঞ্চিত , লাঞ্ছিত, হামলা মামলার স্বীকার। এছাড়াও এই স্বতন্ত্র এমপি থেকে নৌকার এমপি হওয়ার পর থেকে তার পরিবারের সদস্যরা মণিরামপুরের এমন কোন প্রতিষ্ঠান নেই যেখানে তাদের ক্ষমতার অপব্যাহার করতে বাদ রেখেছেন।এছাড়া গত ১৩ নভেম্বর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি দেশরত্ন শেখ হাসিনা খুলনা বিভাগীয় সম্মেলনে যোগ দিতে মণিরামপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেন ও মনোনয়ন প্রত্যাশী এস এম ইয়াকুব আলীর গাড়ী বহরে হামলা করে অর্ধ শতাধিক কর্মীকে আহত করে ও গাড়ী ভাংচুর করে স্বপন ভট্টাচার্য এমপি পুত্র সুপ্রিয় ভট্টাচার্য শুভর নেতৃত্বে। রয়েছে তার ভাগ্নে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুর বিরুদ্ধে ৫৫৫ (৫৪৯) আলোচিত ত্রানের চাউল চুরি, ঘের দখল, জমি দখল, নিয়োগ বানিজ্য, দলীয় পদ বিক্রি করে জামাত বিএনপি পরিবার থেকে যুবলীগের পদ দেওয়ার মতো নেক্কারজনক অভিযোগ।

যেকারণে মণিরামপুর সংসদীয় আসনের সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে দলীয় নেতা কর্মী সমার্থকদের সমার্থন না পেলেও বিএনপি জামাত পরিবারের সদস্য ও নাশকতা মামলার আসামী সহ নৌকা বিরোধী স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীদের নিয়ে মনোনয়ন তদবির করছেন বলে মণিরামপুরে সর্বত্র চলছে সমালোচনা।
বিভিন্ন ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায় , স্বপন ভট্টাচার্য দ্বাদশ নির্বাচনে যদি আবারও নৌকা মার্কার প্রার্থী হয়ে আসে তাহলে এবার তিনি জামানত হারাবেন।এমনকি দলের কর্মী সমার্থকরা ভোট কেন্দ্র বিমুখ হয়ে যাবে সেক্ষেত্রে দল যদি এবার দূর্নীতি রোধে ও মণিরামপুর ৫ আসনটি দখলে নিতে চাই তাহলে অবশ্যই এই আসনটিতে নতুন কোন প্রার্থীকে নৌকার মাঝিকে দিয়ে পাঠাতে হবে।

অনুমতি ব্যতিত এই সাইটের কোনো কিছু কপি করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।

প্রিয় পাঠক অনলাইন নিউজ পোর্টাল দ্যামেইলবিডি.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন themailbdjobs@gmail.com ঠিকানায়।

More articles

সর্বশেষ