মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৮, ২০২৩

অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া ২০০ রানের লক্ষ্য তাড়া করে ভারত জিতেছে ৬ উইকেট হাতে রেখেই

যা যা মিস করেছেন

ওয়ানডেতে দুদলের ১৫০তম মহারণ উপহার দিল লো-স্কোরিং থ্রিলার। শঙ্কা কাটিয়ে বিরাট কোহলি (৮৫) ও লোকেশ রাহুলের (৯৭*) ব্যাটে ৫২ বল বাকি থাকতে অস্ট্রেলিয়াকে ছয় উইকেটে হারিয়ে ফেভারিটের মতো বিশ্বকাপ শুরু করল ভারত। চেন্নাইয়ে ওয়ানডে বিশ্বকাপে এই প্রথম কোনো ম্যাচ হারল অস্ট্রেলিয়া। এর আগে তারা এই ভেন্যুতে ভারত (১৯৮৭), জিম্বাবুয়ে (১৯৮৭) ও নিউজিল্যান্ডের (১৯৯৬) বিপক্ষে জিতেছিল।

চিপকের স্পিন-স্বর্গে বিশ্বকাপযাত্রার শুরুতে রবীন্দ্র জাদেজা ও কুলদীপ যাদবের ঘূর্ণিতে অস্ট্রেলিয়াকে মাত্র ১৯৯ রানে গুটিয়ে দেওয়ার পর হয়তো সহজ জয়ের ছবিই আঁকছিল ভারত। কিন্তু স্পিনে নাকাল অস্ট্রেলিয়া আগুনে পেসে কাঁপিয়ে দেয় স্বাগতিকদের।

মাত্র দুই রানেই তিন উইকেট হারায় ভারত। প্রথম ওভারে ইশান কিষানকে ফিরিয়ে বিশ্বকাপে দ্রুততম ৫০ উইকেটের রেকর্ড গড়েন মিচেল স্টার্ক। পরের ওভারে জশ হ্যাজলউডের জোড়া শিকারে পরিণত হন অধিনায়ক রোহিত শর্মা ও শ্রেয়াস আয়ার। প্রথম চার ব্যাটারের তিনজনের শূন্য রানে আউট হওয়ার নজির ভারতের ওয়ানডে ইতিহাসে এই প্রথম। ব্যক্তিগত ১২ রানে হ্যাজলউডের বলে বিরাট কোহলির সহজ ক্যাচ মিচেল মার্শ ফেলে না দিলে আরও চাপে পড়ে যেত ভারত।

‘জীবন’ পাওয়ার পর লোকেশ রাহুলকে নিয়ে ঠান্ডা মাথায় স্বাগতিকদের ম্যাচে ফেরান কোহলি। ১৬৫ রানের চতুর্থ উইকেট জুটিতে দুজনই তুলে নেন ফিফটি। ১১৬ বলে ৮৫ রান করে কোহলি যখন বিদায় নেন, জয় তখন ভারতের দৃষ্টিসীমায় চলে এসেছে। কোহলির বিদায়ের পর হার্দিক পান্ডিয়াকে (১১*) নিয়ে ৫২ বল বাকি থাকতে দলকে জয়ের ঠিকানায় পৌঁছে দেন ৯৭ রানে অপরাজিত থাকা রাহুল। ম্যাচসেরা তিনিই।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ভারতের স্পিনারদের দাপটে তিন বল বাকি থাকতেই ১৯৯ রানে থমকে যায় অস্ট্রেলিয়া। মিচেল মার্শকে শূন্য রানে ফিরিয়ে শুরুটা করেছিলেন পেসার জাসপ্রিত বুমরা। দ্বিতীয় উইকেটে ৬৯ রানের জুটিতে সেই ধাক্কা সামাল দেন অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে অভিজ্ঞ দুই ব্যাটার ডেভিড ওয়ার্নার ও স্টিভেন স্মিথ।

৫২ বলে ৪১ রানের ইনিংসের পথে বিশ্বকাপে দ্রুততম এক হাজার রানের রেকর্ডটি নিজের করে নেন ওয়ার্নার। তাকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন কুলদীপ। ৭১ বলে ৪৬ করে জাদেজার শিকারে পরিণত হন স্মিথ। এর পরই নামে ধস। দুই উইকেটে ১১০ থেকে ১৪০ রানে নেই সাত উইকেট।

সেখান থেকে অস্ট্রেলিয়া দুইশ ছুঁইছুঁই পুঁজি পায় মিচেল স্টার্ক (২৮) ও অধিনায়ক প্যাট কামিন্সের (১৫) ব্যাটে। আইপিএলে চেন্নাইয়ের হয়ে খেলা জাদেজা ঘরের মাঠে মাত্র ২৮ রানে তিন উইকেট নিয়ে ভারতের সফলতম বোলার। তিন স্পিনারের ৩০ ওভার থেকে ছয় উইকেট হারিয়ে মাত্র ১০৪ রান নিতে পারে অস্ট্রেলিয়া। কুলদীপ দুটি ও রবিচন্দ্রন অশ্বিন নেন এক উইকেট। বাকি চার উইকেট ভাগাভাগি করে নেন তিন পেসার-বুমরা, মোহাম্মদ সিরাজ ও হার্দিক পান্ডিয়া।

অনুমতি ব্যতিত এই সাইটের কোনো কিছু কপি করা কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয়।

প্রিয় পাঠক অনলাইন নিউজ পোর্টাল দ্যামেইলবিডি.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন themailbdjobs@gmail.com ঠিকানায়।

More articles

সর্বশেষ