মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের প্রকল্প পরিচালক তরিকুল আলমের বিরুদ্ধে ৫ কোটি টাকার দূর্নীতি এবং ১২ কোটি টাকার দূর্নীতির চেষ্টা – দ্যা মেইল বিডি / খবর সবসময়
First Lead NewsHeadlineLead Newsজাতীয়

মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের প্রকল্প পরিচালক তরিকুল আলমের বিরুদ্ধে ৫ কোটি টাকার দূর্নীতি এবং ১২ কোটি টাকার দূর্নীতির চেষ্টা

মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের আইজিএ (IGA) প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো: তরিকুল আলম(অতিরিক্ত সচিব) কর্তৃক পাঁচ কোটি টাকার দরপত্রে দুর্নীতি  সাধন এবং বারো কোটি টাকার দরপত্রে দূর্নীতির চেষ্টা

 

সেলিম পাটোয়ারি (সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার) : মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের আইজিএ (উপজেলা পর্যায়ে মহিলাদের জন্য আয়বর্ধক প্রশিক্ষণ প্রকল্প) প্রকল্পের পরিচালক জনাব মো: তরিকুল আলম সীমাহীন দূর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েছেন। দরপত্র আহবানের পর পছন্দের প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেওয়ার জন্য যা যা করা দরকার তার সবই তিনি করে থাকেন। মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের আওতাধীন পূর্বের দরপত্রগুলোতেও নিজ পছন্দের প্রতিষ্ঠানকে কাজ পাইয়ে দিয়ে তিনি অন্যায় পদক্ষেপ গ্রহণ করে আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন বলে অভিযোগ আছে।

পূর্বের দরপত্র যেমন, কম্পিউটার, প্রিন্টার, বিউটিফিকেশন চেয়ার, সেলাই মেশিন, ইন্ডাস্ট্রিয়াল সুইং মেশিন ক্রয় এবং আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে জনবল সরবারহের ক্ষেত্রে তিনি দূর্নীতির আশ্রয় নিয়েছেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে। এসব দরপত্রের মূল্য ছিল কমবেশী পাঁচ কোটি টাকা। কম্পিউটার ও  সেলাই মেশিন সরবরাহের দরপত্রে গ্লোবাল কনস্ট্রাকশন এন্ড সাপ্লায়ার এবং বিউটিফিকেশন চেয়ার সরবরাহের দরপত্রে ভিন্ন একটি প্রতিষ্ঠান সর্বনিম্ন দরদাতা হওয়া সত্ত্বেও তাদের কাজ দেওয়া হয়নি বলে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান হতে অভিযোগ রয়েছে। এসব কর্মকান্ডের পরিপ্রেক্ষিতে, পূর্বে একাধিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক অভিযোগ দেওয়ার পরেও কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

কম্পিউটার সার্ভিসিং এন্ড রিপেয়ারিং ও মোবাইল সার্ভিসিং এন্ড রিপেয়ারিং দরপত্রের মূল্যায়ণের ক্ষেত্রেও জনাব মো: তরিকুল আলম পক্ষপাতিত্বের আশ্রয় নেন। উক্ত দরপত্রের মূল্য কমবেশী বারো কোটি টাকা। দরপত্র খোলার সময় তিনি উইডুর কাগজপত্র ওভারলুক করার চেষ্টা করেন। তিনি বিভিন্ন ভাবে উইডুকে নন-রেসপন্সিভ করার প্রচেষ্টা চালান বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে। উক্ত দরপত্রের অংশগ্রহণকারীদের হতে প্রশিক্ষণ প্রদানের উপর সরকারি কাজে একক কার্যাদেশে সর্বনিম্ন ১০ কোটি টাকার সার্টিফিকেট চাওয়া হয়েছে। এ যোগ্যতা প্রকল্প পরিচালকের পছন্দের প্রতিষ্ঠানের নেই। কিন্তু তিনি সেই অযোগ্য প্রতিষ্ঠানকেই কাজ দেওয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন।

উক্ত দরপত্রে দরদাতার মালিকানাধীন ২০টি ট্রেনিং সেন্টার থাকার শর্ত দেওয়া হয়েছে; যা বাংলাদেশ কারিগরী শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক অনুমোদিত হতে হবে । দরপত্রে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা কমানোর জন্য এ উদ্ভট  শর্ত দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। প্রকল্প পরিচালক এর পছন্দের প্রতিষ্ঠান যে ট্রেনিং সেন্টারগুলোর নাম জমা দিয়েছেন তা তাদের মালিকানাধীন নয়। সেই ট্রেনিং সেন্টার গুলো তৃতীয় পক্ষের মালিকানাধীন। দরপত্রে “সিস্টার কনসার্ন” শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে, যার অর্থ একই ব্যাক্তির মালিকানাধীন অন্য প্রতিষ্ঠান। কিন্তু প্রকল্প পরিচালক সিস্টার কনসার্ন শব্দের অপব্যাখ্যা করে পছন্দের দরদাতার মালিকানাধীন ২০টি ট্রেনিং সেন্টার না থাকা সত্ত্বেও তাকে কাজ দেওয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন।

উক্ত প্রকল্পের দরপত্রে অংশগ্রহণকারীদের বাৎসরিক টার্নওভার ৭ (সাত) কোটি টাকার উপরে থাকা বাধ্যতামূলক। ১০ কোটি টাকার প্রশিক্ষণ সার্টিফিকেট থাকা, নিজ মালাকানাধীন ২০টি ট্রেনিং সেন্টার থাকা এবং বাৎসরিক টার্ন্ওভার ৭ (সাত) কোটি টাকার উপরে থাকা- এই তিনটি শর্ত দরপত্রে অংশগ্রহণকারী দরদাতাদের মধ্যে রয়েছে কি-না, তা যথাযথভাবে যাচাই করার জন্য উইডু ও RISDA-Bangladesh এর পক্ষ হতে প্রকল্প পরিচালককে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

প্রকল্পের দরপত্র খোলার সময় কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের ই-টিন এবং সর্বশেষ মাসের ভ্যাট পরিশোধ থাকা সত্ত্বেও প্রকল্প পরিচালক অন-লাইনে যাচাই না করে ওভারলুক করার প্রচেষ্টা চালান । প্রকল্প পরিচালক পছন্দের প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেওয়ার জন্য এ আচরণ করেছেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে।

পিপিআর এর নিয়ম অনুযায়ী দরপত্রে অংশগ্রহণকারী কোন প্রতিষ্ঠানকে নন-রেসপন্সিভ দেখাতে হলে আনুষ্ঠানিকভাবে লিখিত আকারে কারন জানাতে হয়। জনাব মো: তরিকুল আলম পূর্বের দরপত্রগুলোতে এ নিয়মের লঙ্ঘন করেছেন।

প্রকল্প পরিচালক কম্পিউটার সার্ভিসিং এন্ড রিপেয়ারিং ও মোবাইল সার্ভিসিং এন্ড রিপেয়ারিং কাজটি প্রথমবারের দরপত্রে যে প্রতিষ্ঠানকে দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন, পুনঃ দরপত্রেও একই প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেওয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন।

দরপত্রে প্রকল্প পরিচালক PPR  এর নিয়ম বহির্ভূত শর্ত দিয়েছেন বলে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলো হতে অভিযোগ এসেছ। এ বিষয়ে প্রকল্প পরিচালকের মোবাইলে কল দিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি।

সূত্রঃ উইডু ও RISDA-Bangladesh এর অভিযোগের আলোকে।

 

Tags
Show More

এই বিভাগের আর খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close