শরীফ আহমদ কর্তৃক মিথ্যা সংবাদ ও গুজবের নিন্দা জানিয়েছেন ফয়েজ আহমদ - দ্যা মেইল বিডি / খবর সবসময়
সারা বাংলা

শরীফ আহমদ কর্তৃক মিথ্যা সংবাদ ও গুজবের নিন্দা জানিয়েছেন ফয়েজ আহমদ

[ প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ]

সম্প্রতি অনলাইন পত্রিকায় আমি মাওলনা ফয়েজ আহমের বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। যা আমার দৃষ্টিগোচর হয়। ভুল তথ্যে ভরপুর সংবাদটিতে আমাকে নিয়ে বাজে ধরনের মন্তব্য করে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে যার কোন সত্যতা নেই। তথ্যসুত্র হিসেবে মাওলানা শরিফ আহমদের বরাত দিয়ে প্রকাশিত সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মেসেঞ্জারে সেন্ট করে সমাজের সুশীল ব্যক্তিবর্গের কাছে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য উঠেপড়ে লেগেছেন শরীফ আহমদ। অথচ শরীফ আমদের কুকীর্তির শেষ নেই। তার নিজের গোপন ক্যামেরায়- সে কীভবে ভিন্ন ভিন্ন নারীদের সাথে অসামাজিক কার্যকলাপ করছে সেসব পর্ণগ্রাফির ভিডিও ইউটিউব ও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। সেসব ভিডিও নিয়ে পোষ্ট করা ভিডিও ইউটিউব ফেসবুকে এখনো রয়েছে। যা সুশীল সমাজ সহ সকল সচেতন মহল অবগত আছেন। তার এসব অপকর্মের কারণে ২০১৫ সালে তার প্রথম স্ত্রী ১৫ বছর সংসার করার পরও তাকে তালাক দিয়ে চলে যায়। পানিসমেন্ট হিসাবে তিনি তার প্রথম স্ত্রীকে ক্ষতিপুরনও আদায়করেন। এত কিছুর পরেও শরিফ আহমদ সংশোধন হননি। পরবর্তীতে আবারো বিয়ে করলে ২য় স্ত্রী তার অপকর্মের প্রতিবাদ করলে তার উপর শুরু করেন নির্যাতন।এক পর্যায়ে ২য় স্ত্রীর বড় ভাই পুলিশের সহায়তায় আহত বোনকে উদ্ধার করেন। এর আগে মাওলানা শরিফ আহমদ আমরা উভয়েই বাংলাদেশে একই এলাকার বাসিন্দা ও বিভিন্ন সংগঠনে তিনি আমার সহকারী হওয়ার সুবাদে এবং তার স্ত্রীর পরিবার আমার আত্মীয় হওয়ার কারনে বিভিন্ন সময়ে এসব জটিলতা নিরসনের জন্য তারা উভয়েই আমার সাথে ফোনে কথা বলেন।কিন্তু নির্যাতন বেড়ে যাওয়ায় এবং শরীফ আহমদের প্রতি আস্থা না থাকায় তার স্ত্রী মামলার মাধ্যমে আইনী ভাবে তার অধিকার আদায়ের সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। আমার দ্বারা তার ঘটনাটি নিষ্পত্তি না হওয়াতে এবং আমি যথা সাধ্য অন্যায় অপকর্মের প্রতিবাদ করায় আমার উপর ক্ষেপে গিয়ে তার ২য় স্ত্রীর সাথে আমাকে জড়িয়ে বিভিন্ন ভাবে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ফেসবুকের ফেইক আইডি খুলে মিথ্যা তথ্য দিয়ে প্রচার প্রাচরণা চালিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি । এসব বিষয় নিয়ে মাওলানা শরিফ আহমদের বিরুদ্ধে কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ ও উলামায়ে কেরামগণের কাছে আমি বিচারপ্রার্থী হলে গত ২৩ মে মারকাজুল উলূম লন্ডনে ব্রিটেনের প্রখ্যাত উলামায়ে কেরাম ও কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ শালিস বৈঠকের মাধ্যকে বিষয়টি নিষ্পত্তি করেদেন।
সালিশ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন শায়খ মাওলানা আছগর হোসেন, শায়খ মাওলনা আবু সাঈদ, শাইখুল হাদিস মুফতী আব্দুর রহমান, এম এ রহিম (সি,আই,পি), ইমাম ফরীদ আহমদ খাঁন, প্রিন্সিপাল মাওলানা শুয়াইব আহমদ, মুফতী আব্দুল মুনতাকিম, আলহাজ সিরাজুল ইসলাম, জশিম উদ্দিন প্রমুখ। আরো উপস্থিত ছিলেন মুফতী হাছান নূরী চৌধুরী,আলহাজ আব্দুল মুছাববির, মুফতী ছালেহ আহমদ, আলহাজ সৈয়দ আমিরুল ইসলাম, আলহাজ আতহার চৌধুরী,মাষ্টার ফজল উদ্দিন, আলহাজ জয়নাল আবেদিন, মাওলানা ফজলুল হক কামালী,মাওলানা মিছবাহুজজামান হেলালী, মাওলানা আফজল আহমদ,মুফতী সৈয়দ রিয়াজ আহমদ, আলহাজ আলাউদ্দিন,আলহাজ সিরাজউদ্দিন, আছাদুররহমান, জুনাইদ চৌধুরী পমূখ আলিম উলামা বিভিন্নরাজনৈতিক ও কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ।
শালিস বৈঠকে আমরা উভয়েই বার বার কাগজ পড়ে এবং বুঝে সকলের সামনে স্বাক্ষর করি।এর মাধ্যমে সকল ভূল বুঝাবুঝির সমাধান হয়।কিন্ত চিরাচরিত অভ্যাস অনুযায়ী বৈঠকের তিন দিন পরেই আবারো আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচারে নেমেপড়েন মাওলানা শরীফ আহমদ। এবং অনলাইন পত্রিকায় আমার বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করিয়ে সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গের ফেসবুক মেসেঞ্জার ও বিভিন্ন মোবাইলে সেন্ট করছেন।
তার এসব অপপ্রাচারে সুশীল সমাজের কাছে আমার সম্মান হানি হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এসব অসত উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য অনলাইন পত্রিকায় আমার বিরুদ্ধে যেসব মিথ্যা সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে আমি তার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

মাওলানা ফয়েজ আহমদ

Show More

এই বিভাগের আর খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close