চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়েছেন দুর্জয় – দ্যা মেইল বিডি / খবর সবসময়
Lead Newsজাতীয়

চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়েছেন দুর্জয়

চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে এলাকার গরিব মানুষের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়াসহ নানা খাতে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক ক্রিকেটার নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের বিরুদ্ধে। ফলে খ্যাতিমান এই ক্রিকেটারের জনপ্রিয়তা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা।

দুর্জয়ের নির্বাচনী এলাকার অসংখ্য বেকার যুবক বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চাকরির আশায় সর্বস্ব খুইয়েছেন। তারা এমপি দুর্জয়ের পেছনে যেমন মাসের পর মাস ধরনা দিয়েছেন, চাকরবাকরের মতো ফুটফরমায়েশ খেটেছেন, পাশাপাশি চাকরি নিশ্চিত করতে এমপির ঘনিষ্ঠদের হাতে তুলে দিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। কিন্তু শেষমেশ তাদের কারোরই ভাগ্যে চাকরি জোটেনি, ফেরত পাননি টাকাও। ভুক্তভোগী সাধারণ মানুষজন চড়া সুদে আনা টাকা ফেরত দিতে ব্যর্থ হয়ে প্রতি মাসে সুদ গুনতে বাধ্য হচ্ছেন। এমপির বাসভবনে চাকরির প্রলোভন দিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার প্রতারণামূলক কাণ্ড থেকে দলীয় নেতা-কর্মীরা পর্যন্ত রেহাই পাননি।

মানিকগঞ্জের দৌলতপুরের চরকাটারী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক দলীয় পদবি ব্যবহার করে কোথাও প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করেননি। টেন্ডারবাজি-চাঁদাবাজির সঙ্গেও জড়িত নন তিনি। অভাবী পরিবারের সন্তান আবু বকর সিদ্দিক স্বপ্ন দেখেন ছোট একটি চাকরির। কিন্তু চাকরি তো হয়ই-নি, উল্টো স্থানীয় সংসদ সদস্য দুর্জয়ের নামে তারই ভাগ্নে আব্বাস ঘুষ বাবদ হাতিয়ে নিয়েছেন ৫ লাখ টাকা। তারও চাকরি হয়নি। টাকাও ফেরত দেওয়া হয়নি। সে টাকার বিপরীতে গত প্রায় আড়াই বছর ধরে সুদের ঘানি টানছে তার পরিবার। তিনি বলেন, ‘টাকা ফেরত না পেয়ে আমি এমপি (দুর্জয়) সাহেবের সঙ্গে ঢাকায় তার লালমাটিয়ার বাসায় দেখা করি। একপর্যায়ে তিনি আমাকে বলেছেন আরও কিছুদিন ধৈর্য ধর। আবার সার্কুলার দিলে তোর চাকরি হয়ে যাবে।’ কিন্তু সে চাকরি জোটেনি আজও।

একই উপজেলার লাউতারা গ্রামের মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে আবদুল আজিজও এমপি চক্রের নির্মম চাকরি বাণিজ্যের শিকার হয়েছেন। স্কুলে পিয়নের চাকরি নিতে তাকেও খোয়াতে হয়েছে ১৪ শতাংশ জমির ওপর গড়ে তোলা একটি গাছের বাগান এবং এনজিও থেকে নেওয়া ঋণের পুরোটাই। এ প্রসঙ্গে আজিজ বলেন, ‘পিয়ন পদের জন্য ঘুষ বাবদ ৬ লাখ টাকা এমপির ঘনিষ্ঠ আব্বাসের কাছে পৌঁছে দিই। কিন্তু ভাগ্যে জোটেনি চাকরি, ফেরত পাইনি টাকাও।’ উপরন্তু নানামুখী বিপদে পড়েছেন আবদুল আজিজ। একদিকে এনজিওর কিস্তি বাবদ প্রতি সপ্তাহেই হাজার টাকা গুনতে হচ্ছে, অন্যদিকে ঋণ বাবদ পৌঁছাতে হচ্ছে চড়া সুদ। পরিবারের সদস্যদের মুখে দুই বেলা দুই মুঠো খাবার তুলে দেওয়াটাই যার জন্য কষ্টকর, তার মাথায় চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে এমপি চক্রের ঘুষের ধকল।

এসব ব্যাপারে প্রশ্ন তোলা হলে মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুর্জয় বরাবরই সাংবাদিকদের বলেন, ‘অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। চাকরিপ্রার্থীরা যাকে ঘুষ দিয়েছেন তাদের জিজ্ঞাসা করুন।’ তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে।’

Tags
Show More

এই বিভাগের আর খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close